ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩


পবিত্র কাবা শরিফের তালা-চাবির ইতিহাস জানেন?

মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ | ১২:৫১:৩৭ am

মুসলমানদের কেবলা হচ্ছে পবিত্র কাবা শরিফ। অর্থাৎ আল্লাহর এই পবিত্র ঘরের দিকে মুখ করে সকল মুসলমান নামাজ আদায় করেন। প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুসলমানেরা পবিত্র কাবা ঘরে হজ করতে যান এবং একারণে এই পবিত্র স্থান মিডিয়ায় ফোকাসে পরিণত হয়েছে। তবে খুব কমসংখ্যক লোকই এই পবিত্র ঘরের তালা-চাবির ইতিহাস সম্পর্কে অবগত রয়েছেন।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, সময় অতিবাহিত হওয়ার সাথে সাথে পবিত্র কাবা ঘরের তালা-চাবিও নষ্ট অথবা জং ধরেছে। ২০১২ সালে ৬৪ বছরের পুরাতন তালা-চাবি পরিবর্তন করেন সৌদি আরবরে তৎকালীন বাদশাহ খালেদ আল ফয়সাল। 'বানি শায়বাহ' নামক এক আরবি গোত্রের হাতে পবিত্র কাবা ঘরের তালা-চাবি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব আরোপ করা হয়েছে। প্রায় ১৪০০ বছর পূর্ব থেকে এই গোত্রের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ পবিত্র কাবা ঘরের চাবি সংরক্ষণ করে আসছেন। বানি শায়বাহ গোত্রের প্রধান 'আব্দুল কাদির আল-শায়বাহ এ ব্যাপারে বলেন: কাবা ঘরের চাবি একটি বিশেষ ব্যাগে রাখা হয়। এই ব্যাগটি পবিত্র কাবা ঘরের পর্দা নির্মাণ কারখানায় নির্মিত হয়েছে।

এই পবিত্র ঘরের চাবি কখনোই হারায়নি। তবে বহু বছর পূর্বে এক ব্যক্তি এই চাবি চুরি করার চেষ্টা করেছিল; কিন্তু পরবর্তীতে তাকে গ্রেফতার করা হয় এবং তার নিকট হতে কাবা ঘরের চাবি ফেরত নেওয়া হয়। ইতিহাসে পরিলক্ষতি হয়, খলিফা এবং আব্বাসী, মামলুক ও অটোমানের যুগে কাবা ঘর মেরামত অথবা বিশেষ অনুষ্ঠানের জন্য এই তালা-চাবি পাঠানো হত। কাবা ঘরের সর্বশেষ তালা-চাবিটি অটোমানের যুগে বাদশাহ আব্দুল হামিদ খানের নির্দেশে ১৩০৯ হিজরিতে নির্মাণ করা হয়। এই তালা-চাবিটি আলে সৌদির যুগ পর্যন্ত ছিল।

তবে সৌদির তৎকালীন বাদশাহ খালেদ ইবনে আব্দুল আজিজ আলে সৌদির নির্দেশে পরিবর্তন করা হয়। সংবাদ সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাবা শরিফে এপর্যন্ত ৫৮টি চাবি নিবন্ধন করা হয়েছে। এসকল তালা ও চাবি বর্তমানে যাদুঘরে রক্ষণাবেক্ষণ রয়েছে। ৫৪টি চাবি ইস্তাম্বুলের টুপকাপি যাদুঘরে এবং প্যারিসের ল্যুভরের একটি যাদুঘরে ২টি চাবি রক্ষণাবেক্ষণ রয়েছে এবং অপর ১টি চাবি কায়রোর ইসলামী আর্ট যাদুঘর রয়েছে-ইকনা

বাংলারকণ্ঠ ডটকম/ঢাকা/২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬/এস আই/জে এইচ