ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩


চুল পড়া রোধে চুল ধোয়ার পদ্ধতি বদলান

শুক্রবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ | ১১:০৪:১০ pm

মানুষের বাহ্যিক সৌন্দর্যের মধ্যে চুল অন্যতম। তা সে ছেলে হোক অথবা মেয়ে। চুলের পরিচর্যার ব্যাপারটি আমরা খুব একটা মালুমে নেই না। তবে যখন চুল পড়তে শুরু করে তখন একসঙ্গে অনেক কিছু করতে চাই চুল পড়া রোধ করার জন্য। তবে খুশির সংবাদ হলো এটাই যে, আপনার চুল পড়া রোধ করার জন্য এখন আর তেমন কোনো হারবাল বা ক্যামিকেল ব্যবহারের দরকার নাই। শুধু বদলে ফেলুন আপনার চুল ধোয়ার পদ্ধতিটি।
 
আপনি হয়তো আপনার চুলে নতুন কোনো স্টাইলিশ ছাঁট দিয়েছেন কিন্তু চুল পড়া রোধ করতে না পারায় তা আপনার সৌন্দর্যে ইতিমধ্যে ব্যাঘাত ঘটিয়েছে। আপনাকে অবশ্যই আপনার চুল পড়ার প্রতি সতর্ক হতে হবে। প্রতিদিনের চুল পড়ার পরিমাণ বলে দেয় আপনি কত শিগগির চুলহীন হবেন। তাই বেশি পরিমাণ চুল পড়বার আগেই চুল পড়া রোধ করুন।
 
আপনার চুল পড়ার পরিমাণ যদি ১ থেকে ১০ এর মধ্যে হয় তাহলে তা স্বাভাবিক কিন্তু তার থেকে বেশি হলেই বিপদ। তাই চুল পড়ার পরিমাণ ১০ সংখ্যা অতিক্রম করার আগেই এর রোধ করার চেষ্টা করুন।
 
যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসের স্টাইলিস্ট ডিয়ানা, দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে বলেন, ‘যে কোনো সময় আপনি যদি আলোকে আপনার মাথার প্রকৃত ত্বকে অর্থাৎ স্কাল্পে তাপ প্রদানের মাধ্যমে আঘাত করা থেকে বাঁধা দিতে পারেন তাহলে আপনি অবশ্যই সাফল্য পাবেন।’
 
‘চুলের প্রধান সমস্যাগুলো শুরু হয় শ্যাম্পু থেকে। আমরা অনেকেই আমাদের চুলের ধরন ও চাহিদা অনুযায়ী শ্যাম্পু ব্যবহার করি না। তার সব থেকে বড় কারণ আমরা এটাই জানিনা যে, আমাদের চুলের ধরন কী। আর আমরা খুব কম মানুষই সেটা জানার চেষ্টা করি।’
 
‘এর পর বাইরের সূর্য রশ্মি থেকে মাথার ত্বকে সরাসরি তাপ পড়ে, রাস্তার ধুলাবালি, চুলের আগা ফেটে যাওয়ার মতো আরো কত না সমস্যা। কারো চুল আবার তৈলাক্ত, আবার কারো শুষ্ক। এ সবের কারণেই শ্যাম্পু ব্যবহারের পূর্বেই আমাদের সতর্ক হওয়া উচিত। তবে আপনার চুল ধোয়ার পদ্ধতিও কমিয়ে দিতে পারে আপনার চুল পড়া।’
 
যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনের বল অ্যান্ড বাকের নাপিত ভ্যান ক্যাপিযানো বলেন, ‘ছেলেদের সপ্তাহে তিন বার চুল ধোয়া উচিত। বিশেষ করে যারা চুল পড়ার সমস্যায় ভুগছেন। চুলকে উজ্জ্বল, নরম এবং সুন্দর দেখানোর জন্য শ্যাম্পুতে সালফেট ও বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক পদার্থ মেশানো হয়। যার অধিক ব্যবহারে চুলের ক্ষতি হতে পারে।’
 
ক্যাপিযানো আরো বলেন, ‘নিজের চুলকে চকবোর্ড ভাববেন না। প্রতিদিন সকালে উঠে চুল ধুয়ে পরিষ্কার করার পরিবর্তে ভাবুন কীভাবে প্রতিদিন আপনি আপনার চুলের চাহিদা অনুযায়ী পুষ্টি দিতে পারেন। চুলে যত কম রাসায়নিক মিশ্র পণ্য কম ব্যবহার করবেন তত আপনার চুল পড়া কমে যাবে। যদি আপনি আপনার চুলে একদিন শ্যাম্পু না করে কোথাও বের হতে আপনার অস্বস্তি লাগে তবে সেক্ষেত্রে আপনি ড্রাই শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন।’
 
এই ব্যাপারে ডিয়ানা বলেন, এটি আপনার চুলকে শুষ্ক করে দেবে, তেলকে সরিয়ে দেবে এবং চুলকে ঘন ও ফোলানো মনে হবে। অবশেষে আপনি চুল না ধুয়েই চুলের উজ্জ্বলতা বজায় রাখতে পারেন ড্রাই শ্যাম্পুর মাধ্যমে। এতে অন্য কোনো পদ্ধতির তুলনায় চুল পড়ার ঝুঁকি কমে।

বাংলারকণ্ঠ ডটকম/ঢাকা/২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬/এস আই/জে এইচ