ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩


রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া প্রতিষ্ঠানের তালিকা করছে এনবিআর

সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ | ০৯:৫১:৪৮ pm

রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া প্রতিষ্ঠানের নতুন একটি তালিকা করছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। 
 
মাঠ পর্যায়ে তালিকা করার পাশাপাশি ওই প্রতিষ্ঠানগুলোকে রাজস্ব-বান্ধব প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের জন্য কৌশল প্রণয়নসহ ৫ দফা নির্দেশনা দিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।
 
এনবিআরের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা সৈয়দ এ. মু’মেন এ তথ্য জানিয়ে বলেন, ‘দেশের অর্থনীতি দিন দিন বেগবান হওয়ায় রাজস্ব সম্ভাবনা বিশেষ করে আয়কর, শুল্ক ও ভ্যাট আহরণের সম্ভাবনা বাড়ছে। মাঠ পর্যায়ের কমিশনার ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের যথেষ্ট প্রচেষ্টা সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত সকল প্রতিষ্ঠান/ব্যক্তিকে করের আওতায় আনা যায়নি। এজন্য সর্বস্তরে রাজস্ব-বান্ধব সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় আন্তরিক প্রয়াস চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) চেয়ারম্যান।
 
এজন্য আয়কর, কাস্টমস্ ও ভ্যাট সদস্যদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সমন্বয় ও নিয়মিত পারস্পরিক তথ্যাদি আদান-প্রদানের মাধ্যমে একটি অধিকতর কার্যকর টীমওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে আয়কর, শুল্ক ও ভ্যাট বিভাগের সদস্যদের সমন্বয়ে একটি জরুরি ‘ব্রেইনস্টর্মিং সেশন’ আয়োজন করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান।’
 
তিনি জানান, ৫ দফা নির্দেশনা নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা করে একটি কৌশলপত্র প্রণয়ন করা হবে। ৫ দফা নির্দেশনা হলো আয়কর, শুল্ক ও ভ্যাট বিভাগের মাঠ পর্যায়ের সকল দপ্তরের সঙ্গে সমন্বয় রেখে মাঠপর্যায়ে কর রাজস্বের সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন প্রেরণ।
 
মাঠ পর্যায়ের সকল রাজস্ব কর্মকর্তার পারফরমেন্সের মূল্যায়ন ও মাসিক ভিত্তিতে প্রতিবেদন প্রেরণ।
 
মাঠ পর্যায়ে রাজস্ব ফাঁকি প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের একটি তালিকা প্রণয়ন ও তাদেরকে রাজস্ববান্ধব প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের জন্য কৌশল প্রণয়ন।
 
আইসিটি ব্যবহারের মাধ্যমে আয়কর, শুল্ক ও ভ্যাট কার্যক্রমকে গতিশীল করা। সে লক্ষ্যে ফেসবুক নিয়মিতভাবে সমৃদ্ধ (আপডেট) করা। বিশেষকরে ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প, ট্যাক্স অনলাইন প্রকল্প এবং অ্যাসাইকুডা ওর্য়াল্ড সিস্টেম কার্যক্রমকে সফল করতে সর্বোতভাবে প্রয়াস চালানো।
 
এছাড়া এসব বিষয় নিয়ে আয়কর, শুল্ক ও ভ্যাট বিভাগের মহাপরিচালক/কমিশনারদের মধ্যে মাসিক পর্যালোচনা সভার আয়োজন করা।
 
এ বিষয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান বলেন, ‘চলতি অর্থ বছরের বাজেটে আয়কর, শুল্ক ও ভ্যাট বিভাগের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পরিচালিত কার্যক্রম নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণপূর্বক রাজস্ব আদায়ের গতিশীলতা বজায় রাখা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে যেসব বাধা ও প্রতিবন্ধকতা আসবে তা নিরসনে সর্বোচ্চ চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। পাশাপাশি রাজস্ব সংগ্রহের কাজে অধিকতর সাফল্য অর্জনের ক্ষেত্রে সরাসরি আমার পরামর্শ গ্রহণ করার জন্য সকল পর্যায়ের রাজস্ব কর্মকর্তাদের আহ্বান জানাচ্ছি।’

বাংলারকণ্ঠ ডটকম/ঢাকা/১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬/এস আই/জে এইচ